হল ছাড়ছেন না জাবি শিক্ষার্থীরা

শিক্ষার্থীরা আল্টিমেটাম দিলেও ১৭ মে’র আগে খুলছে না ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল। একাডেমিক কাউন্সিলের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হল খোলার দুই সপ্তাহ পর শুরু হবে ক্লাস। অন্যদিকে, প্রশাসনের আশ্বাসে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করলেও, হল না ছাড়ার সিদ্ধান্তে অনঢ়। এদিকে হল খুলে দেয়ার দাবিতে দ্বিতীয় দিনে বিক্ষোভ করেন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আগামী ১৭ মে সব বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার সরকারি সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা। একই সঙ্গে হলে ওঠার দাবিতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন তারা।

এরই প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের নেতৃত্বে একাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে ভিসি জানান, ১৭ এপ্রিলের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের টিকার আওতায় আনা হবে। যৌক্তিক কারণেই হল খোলার বিষয়ে সরকার ও প্রশাসনের সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান জানাতে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. আখতারুজ্জামান বলেন, হলে ওঠার প্রস্তুতি নিতে দুই সপ্তাহ সময় লাগে। সেজন্য অনুষদ ও বিভাগ সমন্বয় করে ১৭ মে’র দুই সপ্তাহ পর থেকে এ কার্যক্রম চলবে। আগে ১৩ মার্চ পর্যন্ত যে রুটিন ছিল তা আর থাকছে না। অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ১৩ মার্চকে কেন্দ্র করে যে পরীক্ষাগুলোর ঘোষণা ছিল, সেগুলো থাকবে না। এগুলো স্থগিত করা হলো।

এদিকে, হল ছাড়ার প্রশাসনিক নির্দেশনা উপেক্ষা করেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তিন দিন ধরে হলে অবস্থান করছেন। একই সঙ্গে নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ ৩ দফা দাবিতে নানা কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন তারা। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করলেও হল ছাড়তে অস্বীকৃতি জানান শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, আমাদের আন্দোলন স্থগিত করা হয়েছে। হল আমরা ছাড়ছি না।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, নির্দেশনা না মানলে তল্লাশি চালিয়ে হল থেকে সবাইকে বের করে দেয়া হবে।

এদিকে, হল খুলে দেয়ার দাবিতে মঙ্গলবার সকালে দ্বিতীয় দিনের মতো ক্যাম্পাসে জড়ো হন কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্বদ্যালয়ের প্রায় অর্ধশত শিক্ষার্থী। তারা ডায়না চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন। পরে উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি দেন। দ্রুত হল খুলে না দিলে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তারা।

করোনা পরিস্থিতিতে এক বছরের বেশি সময় পর আগামী ২৪ মে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।