জাবির সব হলে ফের তালা, আন্দোলন চালানোর ঘোষণা

প্রশাসনের আশ্বাসে অবশেষে হল ছেড়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এতে সব হলেই আবারো তালা দেওয়া হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) এক বিজ্ঞপ্তিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের সব ধরনের পরীক্ষা স্থগিত করার ঘোষণা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে ক্যাম্পাসের আল বিরুনীসহ চারটি হলের গেটে তালা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গতকাল সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত সিলগালা করা হয় আরো চারটি হল। এর আগে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের জন্য হলে হলে যান প্রাধ্যক্ষসহ হলসংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা। রাত ১০টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একাংশ হল ছেড়ে চলে যান। মূলত, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনার পর হল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। সেই সঙ্গে সাধারণ শিক্ষার্থীদেরও হল ছাড়তে আহ্বান জানান তারা। এরপর থেকেই হল ছাড়তে শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

এ ছাড়া সোমবার বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের তালা ভেঙে ছাত্রীরা অবস্থান নেন। কিন্তু মঙ্গলবার বিকেলে ছাত্রীদের হল থেকে বের করে দিয়ে সিলগালা করে দেন প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মুজিবুর রহমান।

এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অধিকাংশ দাবি মেনে নিয়েছে। প্রশাসনের আশ্বাসের প্রতি সম্মান জানিয়ে তারা দিনের কর্মসূচি স্থগিত করেছেন। তবে বাকি দাবিগুলো মানা না হলে তারা বুধবার থেকে আবারও কঠোর আন্দোলন শুরু করবেন।

এর আগে রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত এক জরুরি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার মধ্যে তাদের হল ছাড়তে বলা হয়েছিল। অন্যথায় ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু ওই বিজ্ঞপ্তির পরপরই আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা পাল্টা কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছিলেন। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তারা জানিয়েছিলেন, ‘আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের থাকার সুব্যবস্থা এবং গেরুয়া গ্যাংয়ের বিচার না করতে পারলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অফিস, কোয়ার্টার, প্রক্টর স্যার, ভিসি ম্যামসহ সব বাসায় তালা মেরে দেওয়া হবে।’

গত শুক্রবারের ওই সংঘর্ষের পর থেকে হল খুলে দেওয়ার দাবি করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। কিন্তু হল খুলে না দেওয়ায় রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ছয় দফা দাবিসহ হামলার ঘটনায় মামলা করতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেয় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় অজ্ঞাত ২৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রারের রহিমা কানিজের নির্দেশে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তা জেফরুল হাসান চৌধুরী সজল বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় এই মামলা করেন।