চলতি অর্থবছর লক্ষ্যমাত্রার দ্বিগুণ সঞ্চয়পত্র বিক্রি হতে পারে!

সবশেষ তথ্যমতে সাত মাসে নিট সঞ্চয়পত্রের বিক্রি ছাড়িয়েছে ২৫ হাজার কোটি টাকা। যদিও চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসেই (জুলাই-জানুয়ারি) এ ঋণ দাঁড়িয়েছে ২৫ হাজার ৭০২ কোটি টাকা।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, এসময়ে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে পরিবার সঞ্চয়পত্র। মোট ১৩ হাজার ৬১ কোটি টাকা নিট বিক্রি হয়েছে এ ধরনের সঞ্চয়পত্র। এরপরেই আছে তিনমাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র। নিট বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার ৫শ ৮৮ কোটি টাকা।

পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪শ ৪২ কোটি টাকা। পেনশনার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ২শ ৭৪ কোটি টাকার।

গত সাত মাসে মোট নতুন বিক্রি হয়েছে ৬৫ হাজার ৬শ ২১ কোটি টাকা বিভিন্ন ক্যাটেগরির সঞ্চয়পত্র। এর মধ্যে মেয়াদ শেষ হওয়া সঞ্চয়পত্রের মূল টাকা পরিশোধ করা হয়েছে ৩৯ হাজার ৯১৯ কোটি টাকা। আর মুনাফা পরিশোধ করা হয়েছ ১৮ হাজার ৯শ ৮ কোটি টাকা।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকার ঘাটতি বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ লক্ষ্য ধরা হয় ২০ হাজার কোটি টাকা।

অধিদফতরের তথ্য বলছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল ৭ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকার। আর চলতি অর্থবছরের একই সময়ে সঞ্চয়পত্র বিক্রি বেড়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকার ওপরে। অর্থাৎ সারাবছরের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে সাত মাসেই বেশি বিক্রি হয়েছে ৫ হাজার ৭শ ২ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র। এ গতিতে বাকি ৫ মাসে বিক্রি থাকলে লক্ষ্যমাত্রার দ্বিগুণ ছাড়াবে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ।