মুন্সিগঞ্জে লাশ নিয়ে মিছিল

মুন্সিগঞ্জের মিরকাদিমে প্রতিপক্ষের হামলায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মী ফিরোজ (৩৫) নিহত হয়েছে। তার লাশ নিয়ে মিছিল করেছে স্থানীয়রা। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মেয়র শাহীনের ৪-৫ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করা হয়। শনিবার বিকাল ৫ টায় মিরকাদিম পৌরসভার মিরাপাড়া থেকে লাশ নিয়ে মিছিল শুরু হয়ে এরপর ঈদগাহ মাঠে গিয়ে শেষ হয়। মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীনের নির্দেশে এ হত্যাকান্ড হয়েছে বলে অভিযোগ করে ফাসির শ্লোগান দেয় স্থানীয়রা। শনিবার(৬ মার্চ) সকালে নিহতের ঘটনায় অভিযুক্ত মোহাম্মদ আল-আমিনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে আরো একজনকে।

গতকাল শুক্রবার (৫ মার্চ) রাত সাড়ে ১১টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যবরণ করেন। নিহত ফিরোজ মিরকাদিমের মিরাপাড়া এলাকার মৃত রব ফকির এর ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নিহত আওয়ামী লীগ কর্মী ফিরোজের ভাই উজ্জ্বল জানান, গত বৃহস্পতিবার মিরাপাড়া এলাকায় রাত সাড়ে ১১টায় বাসা থেকে বের হয় আমার ভাই। এরপর নির্জন একটি স্থানে মাথার পিছনে লোহার পাইপ দিয়ে আঘাত করে। মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তাকে ধারালো অস্ত্র দ্বারা আঘাত করা হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে শুক্রবার রাত ১১ টায় মারা যায়। তিনি জানান, আমার ভাই মিরকাদিম পৌরসভার আওয়ামীলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদের সমর্থক। এর জের ধরেই সাবেক মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীনের সমর্থকরা হামলা করে খুন করেছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আবু বকর সিদ্দিক জানান, এ ঘটনায় গত শুক্রবার দুপুরে মারধোরের মামলা হয়েছিল। নিহতের করা মামলাটি এখন হত্যা মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত মোহাম্মদ আলামিনকে(২০) আটক।করে আজ সকালে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। একজন আসামিকে আটক করা হয়। বাকি আসামিদের আটকের চেষ্টা চলছে। এদিকে মিরকাদিম পৌর আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে আগামীকাল আধা বেলা সকল দোকানপাট বন্ধ ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হবে।