কোহলিদের ১১ বছর আগের সেই স্মৃতি মনে করিয়ে দিলেন আজমল

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ টেস্টে ডিন এলগারের আউট নিয়ে বেশ প্রতিবাদে মেতেছে ভারতীয় ক্রিকেটাররা। বিরাট কোহলি, লোকেশ রাহুল সহ বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার মাঠের মাঝেই হতাশার বশে করেছেন বিতর্কিত মন্তব্য। এমতাবস্থায় কোহলিদের ১১ বছর আগের এক স্মৃতি মনে করিয়ে দিয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার সাঈদ আজমল।

২০১১ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকারের বিরুদ্ধে বল করছিলেন সাঈদ আজমল। তার বলে শচীন স্পষ্ট এলবিডব্লিউ হয়েছিলেন। আম্পায়ারও আঙুল তুলে জানিয়েছিলেন এটি আউট। সেই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রিভিউ নেন টেন্ডুলকার। এতে সফল হন তিনি।

কিন্তু ওই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি সাঈদ আজমল। আজও তিনি মনে করেন, তার বলে সেদিন আউট হয়েছিলেন শচীন। কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তির কারণে বেঁচে গিয়েছিলেন ভারতের সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যান।

অনেকটা একই রকম ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউনে। ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকার তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনে ডিন এলগারের এক বিতর্কিত রিভিউ নিয়ে ঘটেছে ধুন্ধুমার কান্ড।

আপাত দৃষ্টিতে রবিচন্দন অশ্বিনের বলে ডিন এলগার স্পষ্ট এলবিডব্লু বয়েছেন বলে মনে হলেও রিভিউতে বল স্ট্যাম্পের উপর দিয়ে যাচ্ছে বলে দেখা যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে হচ্ছে তুমুল বিতর্ক। আম্পায়ার থেকে টিম ইন্ডিয়ার সদস্য, কেউই এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছেন না। এই নিয়েই মুখ খুলেছেন আজমল।

পাকিস্তানের জাদুকরী স্পিনার আজমল বলেন, যখন ২০১১ বিশ্বকাপে শচীন টেন্ডুলকারের আউটটা রিভিউ করায় পরিবর্তিত হয়েছিল, তখন আমায় প্রযুক্তির ওপর ভরসা রাখতে বলা হয়। প্রযুক্তি যে নির্ভুল, সে কথাও জানানো হয়। আজকে ওই লোকেরাই (ভারত) আবার পাল্টি খেয়ে বলছে যে, প্রযুক্তিতে ত্রুটি রয়েছে এবং তা ভরসাযোগ্য নয়।’

তবে এই ম্যাচে এলগার যে স্পষ্ট আউট ছিলেন, সে বিষয়ে নিশ্চিত আজমল। এই নিয়ে তিনি বলেন, যার সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটে, একমাত্র সেই বোঝে। আমি ডিন এলগারের রিভিউটা কয়েকবার দেখেছি এবং কোনোভাবেই ওই বলটা উইকেটের উপর দিয়ে যেতে পারে না। বলটাতো নি-রোলে লাগে এবং ও আউট ছিল।

এরপর তিনি বলেন, এমন একটা নিশ্চিত আউটের সিদ্ধান্ত বিরুদ্ধে গেলে একমাত্র তখন বোঝা যায় এগুলো মেনে নেয়া কতটা কঠিন। ঠিক আজকে যেমন অশ্বিনের বলটা উইকেটে লাগত, তেমন করেই কোনোভাবে ২০১১ বিশ্বকাপে শচীনকে করা আমার বলটাও উইকেটের মধ্যেই ছিল।